শরীরের ওজন বাড়বে কিভাবে ? | ওজন বাড়ানোর উপায় , ১০০% কার্যকরী টিপস

আপনি কি জানতে চান ওজন বাড়বে কিভাবে ? তাহলে এই আর্টিকেলটা শুধু আপনার জন্য।

প্রত্যেকটি মানুষের জন্য স্বাভাবিক ওজন থাকা অতি প্রয়োজন। কেননা অতিরিক্ত ওজন এবং কম ওজন স্বাস্থ্যের জন্য বিভিন্ন ধরনের ঝুঁকি বাড়ায়।

অতএব যাদের ওজন কম তাদের ওজন বাড়ানোর জন্য খাবার থেকে শুরু করে নানান বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। তাহলে খুব সহজেই ওজন বেড়ে যাবে।

তাই আজ আমি আপনাদের কথা ভেবে ওজন বাড়বে কিভাবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করব ? পাশাপাশি ওজন বাড়ানোর পূর্বে কি কি বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে এ নিয়ে আলোচনা করব।

যাতে করে কোন ধরনের ঝামেলা ছাড়াই আপনি আপনার ওজন বাড়াতে পারেন এবং বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য ঝুঁকি থেকে বেঁচে থাকতে পারেন। 

ওজন বাড়বে কিভাবে

Table of Contents

ওজন বাড়বে কিভাবে ?

এখানে শরীরের ওজন বাড়ানোর জন্য কি কি খাবার খেতে হবে এ নিয়ে আলোচনা করব পাশাপাশি কিভাবে ব্যায়াম করতে হবে এ নিয়ে তথ্য দিব ।

তবে এসব নিয়ে আলোচনা করার পূর্বে ওজন বাড়ানোর জন্য কি কি বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে এ নিয়ে আলোচনা করব।

ওজন বাড়ানোর পূর্বে কি কি বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে ? 

অবশ্যই আপনাকে কয়েকটি বিষয় লক্ষ্য করতে হবে এবং সতর্ক থাকতে হবে। আপনার ওজন কেন কম এটা আগে বের করতে হবে। যেমন:

১. যদি কোন কারণ ছাড়াই স্বাভাবিকভাবে ওজন কম থাকে।

এ অবস্থায় দীর্ঘদিন অতিবাহিত হয়। এর থেকে ওজন কমেও না আবার বাড়েও না। তাহলে এক্ষেত্রে ওজন বাড়াতে হবে। ওজন যদি না বাড়ান তাহলে আপনার শরীরের মধ্যে নানা রকম সমস্যা হতে পারে। যেমন :

  • সব সময় ক্লান্ত লাগা।
  • রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা একেবারে দুর্বল হওয়া।
  • অপুষ্টিজনিত সমস্যা হওয়া ইত্যাদি এরকম নানারকম প্রবলেম হতে পারে।

২. যদি কোন কারণ ছাড়াই দিন দিন ওজন কমে যাচ্ছে।

অর্থাৎ : কোন অসুস্থতা ছাড়াই যদি দিন দিন শরিরের ওজন কমে যায় তাহলে এক্ষেত্রে অবশ্যই একজন অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। কেননা এটা ক্যান্সারের মতো মারাত্মক রোগের লক্ষণ হতে পারে ।

৩. বিভিন্ন রকম রোগের কারণে ওজন কম হতে পারে।

অর্থাৎ : নানান রোগের কারণে ওজন কমে যায় । যেমন : মানসিক রোগ , ডায়াবেটিস ইত্যাদির কারণে ওজন কম হয়।

তাই অবশ্যই এ ব্যাপারে একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের কাছে পরামর্শ নিতে হবে। যাতে করে ঐ অভিজ্ঞ ডাক্তার আপনার সমস্যাটি কোথায় তা বের করতে পারে।

আরো পড়ুন : ডায়াবেটিস কমানোর উপায়

৪. আগের তুলনায় খাবার কম খেতে পারলে

যদি আপনি নিম্নে বর্ণিত কোন একটি লক্ষণ এর কারণে খাবার খেতে পারছেন না অথবা আগের তুলনায় কম খেতে পারেন ।

তাহলে অবশ্যই এক্ষেত্রে একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন। যাতে করে ডাক্তার বুঝতে পারেন আপনার মাঝে কোন ধরনের রোগ আছে কিনা।

  • খাবার গিলার সময় কষ্ট অনুভব হওয়া।
  • মুখে বারবার ঘা হওয়া।
  • বেশি বেশি পায়খানা হওয়া
  • সব সময় খুব ক্লান্ত লাগে
  • বারবার অসুস্থ হওয়া
  • মনে হয় খাবার গলায় আটকে থাকে
  • পেট সবসময় ফাপা লাগে
  • অস্বস্তি অনুভব হওয়া খাবার খাওয়ার পরে পেটের মধ্যে
  • মাঝে মাঝে পেট ব্যথা করা

ইত্যাদি এ সমস্ত লক্ষণ দেখা দিলে ই ডাক্তারের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে।

আরো পড়ুন : 

৫. হাতুড়ে ডাক্তারদের থেকে ওজন বৃদ্ধির ঔষধ গ্রহণ করা যাবে না

ওজন বাড়ানোর জন্য হাতুড়ে ডাক্তারদের থেকে অথবা হাতুড়ে ব্যবসায়ীদের থেকে কখনোই ঔষধ গ্রহণ করবেন না।

কেননা এটা আপনার শরীরের জন্য এবং স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ক্ষতিকারক হতে পারে। তাই অবশ্যই অভিজ্ঞ ডাক্তারদের কাছে পরামর্শ নিবেন।

মোটকথা : আপনার যদি উপরের উল্লেখিত কোন ধরনের সমস্যা না থাকে। তাহলে আপনি নিচের উপায় গুলো ফলো করতে পারেন ওজন বাড়ানোর জন্য।

দ্রুত শরীরের ওজন বাড়ানোর উপায়

এখানে আমি ওজন বাড়বে কিভাবে এ নিয়ে বিস্তারিতভাবে নিয়ম বলব। আশা করি আপনি সম্পূর্ণ বিষয়টি ভালোভাবে পড়বেন এবং এ অনুযায়ী কাজ করবেন। তাহলে আপনার ওজন ১০০% দ্রুত বেড়ে যাবে ।

১. ওজন বৃদ্ধির ব্যায়াম করতে হবে

ওজন বাড়ানোর ক্ষেত্রে ব্যায়াম অনেক কার্যকরী উপায়। বিশেষ করে স্ট্রেথ ট্রেনিং। কেননা এ সমস্ত ব্যায়াম করলে শরীরের মাংসপেশিকে বৃদ্ধি করে।

পাশাপাশি শরীরের অতিরিক্ত চর্বিকে দূর করে দেবে। তাই অবশ্যই আপনাকে সপ্তাহে আড়াই থেকে তিন ঘন্টা ব্যায়াম করতে হবে।

ব্যায়াম করার নিয়ম

ব্যায়াম করার জন্য দুটি পদ্ধতি রয়েছে।

  1. কোন জিমে ভর্তি হয়ে নিয়ম তান্ত্রিক ব্যায়াম করবেন। এক্ষেত্রে জিম ট্রেনার আপনাকে শিখিয়ে দিবে কিভাবে ব্যায়াম করতে হয়।
  2. বাড়িতে বসে বসে ব্যায়াম করবেন। এক্ষেত্রে আপনি youtube এর সাহায্য নিতে পারেন। অর্থাৎ ইউটিউবে pushup , plank , pullup ইত্যাদি এগুলো লিখে সার্চ দিলে নানা ধরনের ব্যায়ামের ভিডিও পেয়ে যাবেন। সেখান থেকে আপনি ব্যায়াম করার পদ্ধতি শিখে নিবেন। সে অনুযায়ী প্রতিদিন ব্যায়াম করবেন।

আর এই ব্যায়াম করার দ্বারা আপনার শরীরের অতিরিক্ত চর্বি দূর হয়ে যাবে। ফলে ওজন বৃদ্ধি পাওয়ার জন্য সহায়ক হবে।

২. চিন্তা ভাবনা থেকে মুক্ত থাকতে হবে

চিন্তাভাবনা এটা মানুষকে নানান ধরনের ক্ষতির দিকে নিয়ে যায়। বিশেষ করে মানুষের স্বাস্থ্যকে নষ্ট করে ফেলে।

ফলে ওজন বৃদ্ধি হতে পারে না। অতএব আপনি যদি আপনার ওজনকে বৃদ্ধি করতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে চিন্তামুক্ত থাকতে হবে। চিন্তাকে নিজের মাঝে জায়গা দেওয়া যাবে না।

চিন্তা দূর করার পদ্ধতি

  • যখনই আপনার মাঝে চিন্তা দেখা দিবে তখন আপনি কয়েকটি পন্থা অবলম্বন করতে পারেন।
  • চিন্তা আসার সাথে সাথে কোন একটি কাজকর্মে লিপ্ত হন। এতে আপনার চিন্তা ডাইভাট হয়ে কাজের দিকে চলে যাবে।
  • যখনই চিন্তা আসবে তখনই নামাজে দাঁড়িয়ে যান। এতে আপনার চিন্তা দূর হয়ে যাবে।
  • যখনই চিন্তা আসবে তখনই খেলাধুলায় লিপ্ত হবেন।
  • আপনজনদের সাথে কথা বলুন। এতে চিন্তা দূর হয়ে যাবে।
  • যখন চিন্তা আসবে তখন আল্লাহর কাছে এ ব্যাপারে সাহায্য চান। অবশ্যই আল্লাহ আপনার চিন্তাকে দূর করে দিবে।

আশা করি উপরের পদ্ধতিগুলো গ্রহণ করলে আপনার চিন্তা খুব দ্রুত দূর হয়ে যাবে।

৩. নিয়মতান্ত্রিক ঘুম

ঘুম ওজন বাড়াতে অনেক সহায়ক হয়। অর্থাৎ আপনি যদি রাত্রিবেলা আগে আগে ঘুমান এবং রাত্রি না জাগেন তাহলে ধীরে ধীরে আপনার ওজন বৃদ্ধি পাবে।

পাশাপাশি দুপুরে খাবারের পর একটু বিশ্রাম নেওয়ার চেষ্টা করবেন। এতে করে আপনার ওজন দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

আশা করছি আপনি ওজন বাড়বে কিভাবে এ ব্যপারে ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন । আরো বুঝার জন্য পরিপূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন ।

৪. ওজন বাড়ানোর জন্য নিয়ন্ত্রান্ত্রিক পুষ্টিকর খাবার খাওয়া

ওজন বাড়বে কিভাবে

শরীরের ওজন বৃদ্ধি করার জন্য খাবার অনেক বড় ভূমিকা আছে। অতএব সকাল , দুপুর , রাতের খাবারের ব্যাপারে অবশ্যই সচেতন হতে হবে এবং পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে।

তাহলে খুব সহজেই এবং দ্রুত ওজন বৃদ্ধি পাবে। এ ব্যাপারে আমি বিস্তারিতভাবে আলোচনা করছি।

১. উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার খেতে হবে।

কেননা ক্যালরি যুক্ত খাবার ওজন বাড়ানোর ক্ষেত্রে অনেক জরুরী বিষয়। আর এই খাবারগুলো অবশ্যই প্রতিদিন খাদ্য তালিকায় রাখতে হবে।

উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার তালিকা : 

  • কিসমিস
  • কাঠবাদাম
  • পনির
  • ছাগলের মাংস
  • আলু বোখারা
  • আখরোট
  • মুরগির মাংস
  • মাখন
  • চকলেট
  • কলা
  • চিনাবাদাম
  • কাজুবাদাম
  • খেজুর
  • গরুর মাংস
  • পেস্তা বাদাম
  • কলা
  • গরু , ছাগল ইত্যাদির কলিজা ইত্যাদি।

২. প্রতিদিন অতিরিক্ত ক্যালরি খাবার খেতে হবে।

নানান কারণে আমাদের শরীর থেকে প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি বের হয়ে যায়। তাই অবশ্যই আমাদেরকে এমন এমন খাবার খেতে হবে যেগুলো খাওয়ার কারণে আমাদের শরীরে যেন প্রচুর পরিমাণে ক্যালরি তৈরি হয়। খাবারগুলো হল : 

  • শাকসবজি
  • ভাত
  • ডাল
  • ফল
  • দুধ
  • মাছ
  • ডিম
  • মাংস ইত্যাদি এরকম খাবার নিয়মিত খেতে হবে।

৩. শর্করা জাতীয় খাবার প্রচুর পরিমাণ খেতে হবে।

কেননা শর্করা জাতীয় খাবার শরীরের ওজন বৃদ্ধি করতে অনেক সহায়ক হয়। খাবার গুলো হল :

  • আটা 
  • পাস্তা
  • আলু ইত্যাদি এরকম জাতীয় খাবার।

৪. বারবার খেতে হবে।

অর্থাৎ প্রতিদিন কমপক্ষে পাঁচ থেকে ৬ বার খাবার খেতে হবে। অবশ্যই পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে। যাতে করে আমাদের শরীরে ক্যালোরি পরিপূর্ণ থাকে। আর এটা ওজন বৃদ্ধি করতে অনেক সহায়ক হবে।

৫. আমিষ যুক্ত খাবার খেতে হবে।

শরীরের ওজন বৃদ্ধি করার জন্য অবশ্যই আমাদেরকে প্রতিদিন আমিষ যুক্ত খাবার খেতে হবে। আমি আমিষ যুক্ত খাবার হলো :

  • ডাল
  • মাছ
  • ডিম
  • বীজ জাতীয় খাবার ইত্যাদি। এসব খাবার অবশ্যই আমাদেরকে প্রতিদিন খেতে হবে।

প্রতিদিন খাবার খাওয়ার জন্য একটি রুটিন করে নিতে হবে। ওই রুটিন অনুযায়ী খাবার খেতে হবে।

ওজন বৃদ্ধির ডায়েট চার্ট

সকালে কি কি খাবার খেতে হবে ?

১. দুধ খেতে হবে। দুধ অনেক উপকারী খাদ্য। কেননা দুধের মধ্যে নানান ধরনের পুষ্টি রয়েছে।

বিশেষ করে দুধের মধ্যে রয়েছে ভিটামিন বি-১২ এটা শরীরের রক্ত তৈরি করে। এবং দুধের মধ্যে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম। এটা দাঁত এবং শরীরের হাড়কে মজবুত করে।

পাশাপাশি এই দুধ ওজন বাড়াতে অনেক সাহায্য করে। তাই অবশ্যই প্রতিদিন সকালে কমপক্ষে এক গ্লাস দুধ খেতে হবে।

২. খেজুর খেতে হবে। খেজুরের মধ্যে রয়েছে অনেক পুষ্টি। বিশেষ করে এটাও শরীরের হাড়কে মজবুত করে এবং দাঁতকে সুস্থ রাখে। পাশাপাশি শরীরে রক্ত তৈরি করে।

আরেকটি উপকার রয়েছে সেটা হল খাবারকে দ্রুত হজম করে। ফলে কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়ে যায়। তাই অবশ্যই প্রতিদিন সকালে কয়েকটি খেজুর খেতে হবে। এতে করে আপনার ওজন দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

৩. ডিম খেতে হবে। ডিমে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন। এর ফলে আপনার শরীরের রোগ ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে। ফলে আপনার শরীরের ওজন বৃদ্ধি করতে অনেক সাহায্য করে। অবশ্যই ডিম খেতে হবে।

৪. কলা খেতে হবে। কলার মধ্যে রয়েছে অনেক ভিটামিন। ফলে আপনার শরীরের ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে। পাশাপাশি খাবার হজম করতে অনেক সহায়ক হয়। আরো নানান উপকার রয়েছে। তাই অবশ্যই প্রতিদিন সকালে কলা খেতে হবে।

৫. পানি খেতে হবে। প্রতিদিন সকালে খালি পেটে আধা কেজি থেকে এক কেজি পানি খাবেন। কেননা পানির মধ্যে রয়েছে অনেক উপকার। এবং আপনার ওজন বাড়াতে অনেক সাহায্য করবে।

৬. কিসমিস খেতে হবে। কিসমিসের মধ্যে রয়েছে নানান ভিটামিন। এটা আমাদের শরীরকে সুস্থ রাখার ব্যাপারে অনেক সহায়ক এবং ওজন বৃদ্ধি করার ক্ষেত্রে অনেক উপকার আসে।

তাই অবশ্যই প্রতিদিন রাত্রে কিসমিস ভিজিয়ে রাখবেন এবং সেটা সকালে খাবেন। এতে আপনার ওজন দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

দুপুরবেলায় কি কি খাবার খেতে হবে ?

১. মুরগির মাংস খেতে পারেন। মুরগির মাংস খাওয়ার কারণে আপনার শরীরের ওজন বৃদ্ধি পাবে। গরু ও খাসির মাংস খাওয়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে।

কেননা এই দুইটি মাংসের ভিতরে অস্বাস্থ্যকর চর্বি রয়েছে। তাই অবশ্যই এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে। এই দুই ধরনের মাংস খেতে পারেন তবে পরিমাণে কম খেতে হবে।

২. ডাল খেতে পারেন। ডাল অনেক পুষ্টিকর খাবার। ডালের মধ্যে রয়েছে অনেক প্রোটিন। ডালের মধ্যে কোন ধরনের অস্বাস্থ্যকর চর্বি নেই। তাই এর দ্বারা শুধু উপকার রয়েছে। তাই অবশ্যই আমাদেরকে নিয়ম তান্ত্রিকভাবে ডাল খেতে হবে। এতে করে শরীরের ওজন দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

৩. টক দই খেতে পারেন। দুপুরের খাবারের সাথে টক দই খেতে পারেন। কেননা টক দইয়ের মধ্যে রয়েছে অনেক উপকার। বিশেষ করে আপনার ওজন বৃদ্ধি পাবে। তাই অবশ্যই প্রতিদিন টক দই খেতে পারেন।

৪. মাছ খেতে পারেন। মাছের মধ্যে রয়েছে অনেক ভিটামিন। তাই অনেক উপকার পাওয়া যায়। বিশেষ করে ওজন বৃদ্ধির ব্যাপারে অনেক সহায়ক হয়। তাই অবশ্যই মাছ খাবেন।

রাতের বেলায় কি কি খাবার খেতে হবে ?

১. ডাল খেতে পারেন। ডাল অনেক পুষ্টিকর খাবার। ডালের মধ্যে কোন ধরনের অস্বাস্থ্যকর চর্বি নেই। ডালের মধ্যে রয়েছে অনেক প্রোটিন।

তাই এর দ্বারা শুধু উপকার রয়েছে। তাই অবশ্যই আমাদেরকে নিয়ম তান্ত্রিকভাবে ডাল রাতের বেলায় খেতে হবে। এতে করে শরীরের ওজন দ্রুত বৃদ্ধি পাবে।

২. মুরগির মাংস খেতে পারেন। মুরগির মাংস খাওয়ার কারণে আপনার শরীরের ওজন বৃদ্ধি পাবে।

৩. মাছ খেতে পারেন। মাছের মধ্যে রয়েছে অনেক ভিটামিন। বিশেষ করে ওজন বৃদ্ধির ব্যাপারে অনেক সহায়ক হয় । তাই অনেক উপকার পাওয়া যায়। । তাই অবশ্যই মাছ খাবেন।

৪. টক দই খেতে পারেন। রাতের খাবারের সাথে টক দই খেতে পারেন। কেননা টক দইয়ের মধ্যে রয়েছে অনেক উপকার। বিশেষ করে আপনার ওজন বৃদ্ধি পাবে। তাই অবশ্যই প্রতিদিন রাতে টক দই খেতে পারেন।

এক নজরে ওজন বৃদ্ধির ডায়েট চার্ট

সকাল বেলাদুধ ,খেজুর ,কলা ,ডিম ,কিসমিস ,পানি খেতে হবে ।
দুপুর বেলামুরগির মাংস , ডাল , মাছ , টক দই খেতে হবে ।
রাতের বেলামুরগির মাংস , ডাল , মাছ , টক দই খেতে হবে ।
অন্যান্য সময়শর্করা জাতীয় খাবার , ক্যালরি যুক্ত খাবার খেতে হবে ।

শরীরের ওজন বৃদ্ধি করার জন্য কি কি খাবার খাওয়া যাবেনা ?

ওজন বাড়বে কিভাবে

কয়েক ধরনের খাবার খাওয়া বিরত থাকতে হবে । যেমন :

  • তেল- চর্বি জাতীয় খাবার থেকে বেঁচে থাকতে হবে।
  • অতিরিক্ত চিনি জাতীয় খাবার থেকে বেঁচে থাকতে হবে।
  • ধূমপান থেকে বেঁচে থাকতে হবে। কেননা ধূমপান হলো এমন মারাত্মক জিনিস যেটা স্বাস্থ্য কে নষ্ট করে দেয়। আর নানা রোগ তৈরি করে। তাই অবশ্যই আমাদেরকে ধূমপান থেকে বেঁচে থাকতে হবে।

এ সমস্ত খাবার স্বাস্থ্যের জন্য অনেক ক্ষতিকার। তাই অবশ্যই এ সমস্ত খাবার থেকে সতর্ক থাকতে হবে।

পরিশেষে বলবো : উপরে ওজন বাড়বে কিভাবে এ ব্যাপারে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হলো।

আশা করি আপনি বুঝতে পেরেছেন এবং অনেক উপকৃত হয়েছেন। তাই অবশ্যই আপনি আপনার বন্ধু বান্ধবদের সাথে শেয়ার করবেন। পাশাপাশি কমেন্ট করবেন। ধন্যবাদ।

ওজন বাড়ে না কেন ?

কয়েকটি কারণে ওজন বাড়ে না ।
১. নিয়ন্ত্রান্ত্রিক পুষ্টিকর খাবার না খাওয়ার কারণে ।
২. রাত্রি জাগার কারণে ।
৩. চিন্তা করার কারণে ।
৪. নানান অসুস্থতার কারণে । ইত্যাদি আরো নানান কারণে ।
অতএব আপনি যদি আপনার ওজন বাড়াতে চান তাহলে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ুন ।

কোন কোন সবজি খেলে ওজন বাড়ে ?

নানান ধরনের সবজি খেলে ওজন বাড়ে । যেমন :
১.শাক
২. আলু
৩. মটরশুটি
৪. ভুট্টা
৫. পেঁপে

খেজুর খেলে ওজন বাড়ে না কমে ?

খেজুর খেলে ওজন বাড়ে । খেজুরের মধ্যে রয়েছে অনেক পুষ্টি। বিশেষ করে এটা শরীরের হাড়কে মজবুত করে এবং দাঁতকে সুস্থ রাখে।

Leave a Comment