বেতের নামাজের নিয়ম

আপনি কি জানতে চান বেতের নামাজের নিয়ম ? বেতের এটা আরবি শব্দ। আর বেতেরের অর্থ হল বেজোড়। আর নামাজ যেহেতু 3 রাকাত তাই তাকে বেতের নামকরণ করা হয়েছে।

এ নামাযের অনেক গুরুত্ব রয়েছে। আমাদের নবী হুযুর সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বেতেরের নামাজের ব্যাপারে অনেক গুরুত্ব দিয়েছেন। এবং তিনি বলেছেন বেতেরের নামাজ পড়া আবশ্যক। যে ব্যক্তি বেতেরের নামাজ আদায় করবে না আমাদের জামায়াতের সাথে তার কোন ধরনের সম্পর্ক নেই। (আবু দাউদ শরীফ)

সুতরাং বুঝা গেল বেতেরের নামাজের অনেক গুরুত্ব। আজ আমি বেতের নামাজের নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করুন। যাতে করে আপনি নিয়ম জেনে খুব সুন্দর ভাবে নামাজ আদায় করতে পারেন।

বেতের নামাজের নিয়ম
বেতের নামাজের নিয়ম

বেতের নামাজের নিয়ম

নিয়ম বলার আগে বেতের নামাজের সময় নিয়ে আলোচনা করব যাতে করে আপনার কাছে আরও স্পষ্ট হয়ে যায় নামাজ পড়তে সুবিধা হয় নামাজের গুরুত্ব বাড়ে।

বেতের নামাজের সময়

বেতের নামাজের সময় হল এশারের নামাজের পর দুই রাকাত সুন্নত পরে তারপর বেতের নামাজ পড়া। এই বেতের নামাজ সারা বছর একাকী পড়া হয়।

আর রমজান মাসে বেতেরের নামাজের সময় একটু ভিন্ন রয়েছে। সেটা হলো এশার নামাজ আদায় করে দুই রাকাত সুন্নত নামাজ পড়ে তারাবির 20 রাকাত নামাজ আদায় করে তারপর বেতের নামাজ পড়া হয়।

যদি পুরুষ হয় তাহলে জামাতের সাথে বেতের নামাজ আদায় করা হয়। অর্থাৎ আপনি যদি মসজিদে যান জামাতের সাথে নামাজ আদায় করেন তাহলে বেতের নামাজ জামাতের সাথে পড়া হয়। আর যদি বাড়িতে পড়েন অথবা কোন মহিলা হয় তাহলে এক্ষেত্রে আগের নিয়মেই।

বিস্তারিত ভাবে বেতের নামাজের নিয়ম

বেতের নামাজ অন্যান্য নামাজের মতই। তবে এখানে একটু পার্থক্য রয়েছে। প্রথম দুই রাকাআত অন্যান্য নামাজের মত আদায় করবেন। তবুও একটু বলে দিচ্ছি।সর্বপ্রথম নামাজের নিয়ত করবে। নিয়ত আপনি আরবিতে করতে পারেন আবার বাংলাতেও করতে পারেন।

বেতের নামাজের নিয়ত 

আমি কেবলা মুখী হয়ে আল্লাহর ওয়াস্তে বেতেরের ৩ রাকাত নামাজ আদায় করছি। এরপর আল্লাহু আকবার বলে নিয়ত বাঁধবেন। তারপর সানা ও আউযুবিল্লাহ বিসমিল্লাহ পড়বেন।

তারপর সূরা ফাতিহা পড়বেন। এরপর যে কোন একটি সূরা মেলাবেন। এরপর রুকু ও সেজদা করবেন। তারপর সেজদা থেকে উঠবেন। তারপর বসবেন। আল্লাহুম্মাগফিরলি অরহামনি এই দোয়াটি পড়বেন।

তারপর আবার সেজদা করবেন। তারপর দ্বিতীয় রাকাতের জন্য আল্লাহু আকবার বলে উঠে যাবেন। এভাবে প্রথম রাকাত শেষ করবেন।

এরপর আবার দ্বিতীয় রাকাতের জন্য দাঁড়াবেন। বিসমিল্লাহ পড়বেন।

তারপর সূরা ফাতিহা পড়বেন। এরপর যে কোন একটি সূরা মেলাবেন। এরপর রুকু ও সেজদা করবেন। তারপর সেজদা থেকে উঠবেন। তারপর বসবেন। আল্লাহুম্মাগফিরলি অরহামনি এই দোয়াটি পড়বেন। তারপর আবার সেজদা করবেন।

এরপরে তাশাহুদ পড়বেন । তারপর তাশাহুদ পড়ার পর তৃতীয় রাকাতের জন্য দাঁড়াবেন। এরপর বিসমিল্লাহ পড়বেন তারপর সূরা ফাতিহা পড়বেন। তারপর যেকোন একটা সূরা মিলাবেন।

এরপর আল্লাহু আকবার বলে হাত কান পর্যন্ত উঠাবেন তারপর আবার হাত বাধবেন। এরপর দোয়ায়ে কুনুত পড়বেন। দোয়ায়ে কুনুত আরবিতে বলবেন ।

দোয়ায়ে কুনুত পড়া শেষ হলে রুকু ও সেজদা করে শেষ বৈঠক করবেন । তারপর তাশাহহুদ পরবেন । তারপর দুরুদ শরীফ পরে নামায শেষ করবেন । এভাবেই নামাজ শেষ করবেন।

পরিশেষে বলব : উপরে বেতের নামাজের নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হলো। যদি বিষয় গুলা ফলো করেন তাহলে অবশ্যই আপনি খুব সুন্দর ভাবে বেতের নামাজ আদায় করতে পারবেন। যদি লেখাটি আপনার উপকারে দিয়ে থাকে। এবং ভালো লেগে থাকে অবশ্যই জানাবেন। ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

20 + two =