জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় ৬টি

আপনি কি জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে জানতে চান ? তাহলে এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য।

মানবদেহের যে সকল রোগের উৎপত্তি হয়ে থাকে তার মধ্যে অন্যতম একটি হলো জ্বর। যা নবাগত শিশু থেকে শুরু করে বয়োবৃদ্ধ নারী পুরুষ সকলেরই হয়ে থাকে।

জ্বর কোন খারাপ রোগ নয়, মানবদেহে যে কোনো সংক্রমণ বা প্রদাহের বিপরীতে প্রথম প্রতিরোধ ব্যবস্থা হলো জ্বর। 
আমাদের শরীরের স্বাভাবিক গড় তাপমাত্রা থাকে 98 ডিগ্রি।

শরীরের তাপমাত্রা 99 ডিগ্রী ফারেনহাইটের উপরে গেলে তাকে জ্বর বলে অভিভূত করা হয়। জ্বর হলেই ডাক্তারের কাছে যেতে হবে বা ঔষধ খেয়ে জ্বর কমাতে হবে, বিষয়টি এমন নয়।


শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে গেলে আমরা দুশ্চিন্তায় পড়ে যাই, আর সঙ্গে সঙ্গে ওষুধ খেয়ে ফেলি। অনেকে আরো এক ধাপ এগিয়ে ওষুধের দোকান থেকে অ্যান্টিবায়োটিক ঔষধ ক্রয় করে খেয়ে ফেলি।

যেটা খুবই খারাপ। কোন ধরনের অসুস্থতায় চিকিৎসকের পরামর্শ ব্যতীত ঔষধ সেবন করা যাবেনা।

জ্বরের একটু বেশি সতর্ক থাকতে হবে, কেননা আমাদের শরীরের একটি নির্দিষ্ট তাপমাত্রা পর্যন্ত, জ্বর নিয়ে প্রতিরোধ করতে পারে।

তাই জ্বর হলেই ঔষধ সেবন করা যাবে না। জ্বর বেশি মনে হলে ডাক্তারের পরামর্শ নিন। শরীরের তাপমাত্রা মাত্রাতিরিক্ত না হলে বেশ কিছু ঘরোয়া পদ্ধতিতে শরীরের তাপমাত্রা কমানো সম্ভব। তাই আজ আমি জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব ।

জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায়

জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় সমূহ:

১. গোসল করা

দূরত্ব শরীরের তাপমাত্রা কমাতে, হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে গোসল করুন। এতে শরীরের তাপমাত্রা অনেকটা কমে যাবে। ঠান্ডা পানি দিয়ে গোসল করা যাবে না কেননা এতে শরীরের অভ্যন্তরীণ অঙ্গে রক্ত ছুটে যাবে ও তাপমাত্রা বৃদ্ধি পাবে ।

অপরদিকে শীতল হয়ে পড়বে ও শরীরে কাপুনি শুরু হবে। অতএব দ্রুত শরীরের তাপমাত্রা কমাতে কুসুম গরম পানি দিয়ে শাওয়ার নিন।

২. ভেজা কাপড় ব্যবহার

শরীরের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেলে, একটি সুতি কাপড় ঠান্ডা পানিতে ভিজিয়ে নিন। এরপর সেই ভেজা কাপড় দিয়ে আপনার পুরো শরীর কয়েকবার মুছুন।

প্রতি একবার শরীর মোছার পর, সেই কাপড় কে পুনরায় ঠান্ডা পানিতে ভেজা। এরপর আবার শরীর মুছুন। এভাবে কয়েক বার করুন, দেখবেন অতি সহজে শরীরের তাপমাত্রা কমে গিয়েছে।

৩. জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় হলো ভেজা মোজা

জ্বর কমানোর ক্ষেত্রে ভেজা মজা ব্যবহার করতে পারেন। ভেজা মজা ইমিউন সিস্টেমকে উদ্দীপ্ত করে এবং রক্ত সঞ্চালন বাড়িয়ে তোলে, যা জ্বর কমাতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।
 ব্যবহার পদ্ধতি :
প্রথমে উষ্ণ পানিতে গোসল করে নিন, খুব ভালো করে শরীরকে শুকিয়ে নিন। এরপর এক জোড়া তুলার মজা ঠান্ডা পানিতে ভিজান। এরপর ভালো করে পানি ঝরিয়ে নিন,

এবং মোজা পরিধান করুন, তারপর এই মজার অপর একটি ওলের মোজা পরিধান করুন। দেখবেন অল্প সময়ের মধ্যে শরীরের তাপমাত্রা কমে গিয়েছে।

৪. ঝাল খাবার আহার করা

জ্বর আসলে, বেশি ঝাল যুক্ত খাবার খান।যখন জ্বর আসবে তখন খাবারে বেশি পরিমাণে ঝাল মরিচের গুঁড়া ব্যবহার করুন, ঝাল মরিচের প্রধান উপাদান হলো ক্যাপসাইসিন। যা শরীর থেকে ঘাম ঝরিয়ে জ্বর কমাতে সাহায্য করে।

৫. আদা খাওয়া

আদা জ্বর কমানোর ক্ষেত্রে অন্যতম ভূমিকা পালন করে। আদাতে রয়েছে অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান যা শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে, সেইসঙ্গে এটি শরীরের তাপমাত্রাও কমায়।

ব্যবহারবিধি:
আদা কুচি কুচি করে কেটে, ফুটন্ত গরম পানির মধ্যে চার থেকে পাঁচ মিনিট ফোটাতে হবে। এরপর ওই আদার পানি ছায়ার মত করে খেতে হবে। গরম গরম খেতে হবে যার ফলে শরীর থেকে ঘাম ঝরে, ঘাম ঝরানোর কারণে শরীর ঠান্ডা হয়ে যাবে এতে তাপমাত্রা কমে যাবে।

৬. তুলসী পাতা খাওয়া

তুলসী পাতা তে রয়েছে অ্যান্টিব্যাকটেরিয়াল এবং এন্টিবায়োটিক উপাদান যা শরীরের মাত্রাতিরিক্ত তাপমাত্রা কমাতে সাহায্য করে। 
ব্যবহারবিধি:

  • পর্যাপ্ত পরিমাণ তুলসী পাতা তার সঙ্গে সমপরিমাণ অথবা তার চেয়ে বেশি পানি মিশ্রিত করে গরম করুন
  • এরপর পানি খেয়ে ফেলুন। এতে‌ অতি দ্রুত শরীরের তাপমাত্রা কমে যাবে।

কখন ডাক্তারের কাছে যাবেন ?

  • সব সময় ঘরোয়া পদ্ধতিতে জ্বর বা শরীরের তাপমাত্রা কমে যাবে বিষয়টি এমন নয়। অনেক পরিস্থিতিতে আপনাকে ডাক্তারের কাছে যেতে হবে:
  • জ্বর যদি তিন দিনের বেশি সময় স্থায়ী হয়।
  • জ্বরে আক্রান্ত হওয়ার ফলে যদি পানিশূন্যতা দেখা দেয়।
  • যাদের ইমিউন সিস্টেম দুর্বল অথবা কেমোথেরাপি চলতে তাদের জ্বর 104 f এর বেশি হলে।
  • মাত্রাতিরিক্ত অলসতা বা শ্বাস-প্রশ্বাস নিতে সমস্যা হয়।
  • তিন মাসের কম বয়সি শিশুর যদি 104 f বেশি জ্বর হয়।‌ তখন কোন প্রকার দেরি না করে , কোন অভিজ্ঞ ডাক্তারের সাথে সাক্ষাৎ করুন।

পরিশেষে বলব : উপরে জ্বর কমানোর ঘরোয়া উপায় সম্পর্কে বলা হয়েছে । আপনি যদি এগুলা ফলো করেন । তাহলে ইনশাআল্লাহ জ্বর কমে যাবে ।

জীবন কিভাবে সুন্দর করা যায় ?
লম্বা হওয়ার উপায়
চুল পড়া বন্ধ করার উপায়

Leave a Comment