চুল ঘন করার উপায় ৭টি

আপনি কি জানতে চান চুল ঘন করার উপায় ? আল্লাহ সুবহানাহুওয়া তা’য়ালা আমাদেরকে যতগুলো মাধ্যম দিয়ে সৃষ্টি করেছেন, প্রতিটি মাধ্যমই খুব সুন্দর । সৌন্দর্য বর্ধনের ক্ষেত্রে অন্যতম বড় ভূমিকা পালন করেন এমন একটি মাধ্যম হল চুল।

এই চুল নারী পুরুষ উভয়ের অলংকার। ঘন চুলের আকাঙ্ক্ষা নারী পুরুষ উভয়েরই থাকে। কিন্তু সবার তো আর চুল ঘন হয় না, কারো জীবনের শুরুলগ্নে চুল ঘন থাকলেও পরবর্তীতে বিভিন্ন সমস্যার কারণে ধীরে ধীরে চুলের ঘনত্ব কমে যায়।

এক সময় তা স্বাভাবিক সৌন্দর্য হারাতে বাধ্য হয়। গত এক দশকে দেশে প্রায় তিনগুণ চুলের সমস্যার রোগী বৃদ্ধি পেয়েছে, আজ আমি চুল ঘন করার উপায় ও চুল কেন পড়ে যায় ? ইত্যাদি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

চুল ঘন করার উপায়

চুল ঘন করার উপায়

উপায় জানার আগে জানতে হবে চুল পড়ে যাওয়ার কারণ । তাই আগে চুল পড়ে যাওয়ার কারণ আলোচনা করব । তারপর চুল ঘন করা নিয়ে আলোচনা করব ।

চুল পড়া/ কমে যাওয়ার কারণসমূহ:

অনেকগুলো কারণেই চুল পড়ে । ৫টি কারণ দেয়া হলো :

১: ধূমপান করা

বর্তমান সময়ে চুলপড়ার একটি অন্যতম কারণ হলো ধূমপান। চুলের গোড়ায় সূক্ষ্ম রক্তনালী থাকে, যেটার মাধ্যমে চুলের গোড়ায় পুষ্টি পৌঁছায়। ধূমপান করার ফলে সেই সূক্ষ্ম রক্তনালী বন্ধ হয়ে যায়। যার কারণে চুল পড়ার পরিমাণ বৃদ্ধি পায়।

২ : রাসায়নিক ব্যবহার

মাত্রাতিরিক্ত রাসায়নিক ব্যবহারের কারণেই মাথার ত্বক নষ্ট হয়ে যায়। বর্তমান বাজারে প্রচুর পরিমাণ ক্ষতিকারক রাসায়নিক দ্রব্য পাওয়া যায় যেটা খুবই ক্ষতিকর।

ঘনঘন শ্যাম্পু ব্যবহার করার ফলে চুলের প্রোটিন কমে যায় ফলে চুল পড়া বৃদ্ধি পায়। এরপর চুলের জেল, স্প্রে ইত্যাদি যেটা চুলের জন্য খুবই ক্ষতিকারক।

অনুরূপ ক্লোরিনযুক্ত পানি যেটা চুল পরিষ্কার করা ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। সেটা খুবই ক্ষতিকারক। উহা ব্যবহার করার ফলে চুল পড়ার পরিমাণ খুব বৃদ্ধি পায়। এছাড়াও বিভিন্ন হেয়ার কেয়ার প্রোডাক্টসের রাসায়নিক প্রতিক্রিয়াস্বরূপ মাথার চুল পাতলা হওয়া শুরু হয়।

৩ : হরমোনের ভারসাম্যহীনতা

গর্ভাবস্থায় অনেক মহিলার চুলের প্রকৃতি চেঞ্জ হয়ে যায়। এরপর যারা পিসিও এসের এর সমস্যায় আক্রান্ত তাদের‌ও মাথার চুল পাতলা হয়ে যায়।

৪ : বংশগত

মানব জীবনে বেশ কয়েকটি জিনিস এমন রয়েছে যেগুলো বংশগত কারণে হয়ে থাকে, তার মধ্যে একটি হলো চুল পড়া বা জন্মগতভাবে চুল না গজানো। এটা পুরুষ মহিলা উভয়ের ক্ষেত্রে হয়ে থাকে।

৫ : বিভিন্ন কারণ

চুল পড়ার বিভিন্ন কারণ হতে পারে এর মধ্যে একটি অন্যতম কারণ হলো খাদ্য অভ্যাস অস্বাস্থ্যকর হওয়া। হেলদি ডায়েট চুল পড়ার হার অনেক কমিয়ে দেয়। ভিটামিন ডি এবং মিনারেলস এর ঘাটতির কারণেও চুল কমে যায়। এছাড়া আরো কিছু কারণ যেমন: দূষিত পরিবেশ, অতিরিক্ত স্ট্রেস, মাত্রাতিরিক্ত খুশকি, নোংরা পানি, আর্সেনিকযুক্ত পানি,বিভিন্ন রোগের কারণেও মাথার চুল কমে যায়।

চুল ঘন করার উপায় সমূহ:

অনেক উপায় রয়েছে । ৭টি উপায় দেয়া হলো :

১. আমলকি

আমলকি এতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে এন্টি অক্সিডেন্টস এবং ভিটামিন। যা চুলের জন্য খুবই উপকারী। এছাড়া আমলকি চুলের গোড়ায় কোলাজেনের মাত্রা বৃদ্ধি করে।

ব্যবহারবিধি:

এক টেবিল-চামচ আমলকির গুঁড়া এবং এর সঙ্গে 1 টেবিল চামচ লেবুর রস মিশ্রিত করুন। লেবুর রস চুলের খুশকি দূর করে। টকদই মিশ্রিত করলে সেটা আরো বেনিফিশিয়াল হবে।

এর সঙ্গে আরো এড করা যেতে পারে মধু । মধু চুলে নারিশ মেন্ট প্রোভাইড করে। অতঃপর সবগুলোকে ভালোভাবে মিশ্রিত করুন। এবং চুলে লাগিয়ে দিন। চুলে লাগানোর পর 30 থেকে 35 মিনিট অপেক্ষা করুন।

এরপর শ্যাম্পু করুন এবং নরমাল পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। অতি সহজে চুল বৃদ্ধি করার জন্য বা চুল ঘন করার জন্য এই টিপসটি সপ্তাহে এক দুইবার ফলো করতে পারেন।

২. চুল ঘন করার উপায় হলো নারিকেল তেল ব্যবহার

নারিকেল তেল এটি খুবই উপকারী একটি তেল। যারা প্রাকৃতিক ভাবে চুল ঘন করার ইচ্ছা রাখেন তারা নারিকেল তেল ব্যবহার করতে পারেন।

নারিকেল তেল আপনার চুল ঘন এবং স্বাস্থ্যকর করে তুলতে পারে। নারিকেল তেল ফলিকলসকে হাইড্রেটেড রাখে পাশাপাশি শুষ্কতা ও খুশকি দূর করে।

৩. অলিভ অয়েল

অলিভ অয়েল অ্যাসিড এবং বিভিন্ন পুষ্টি সমৃদ্ধ একটি তেল। অলিভ অয়েলে থাকা ফ্যাটি এসিড অর্থাৎ মনোস্যাচুরেটেড চুলের ডগা এবং শিকর কে শক্তিশালী করে। এছাড়া আপনার ত্বককে আদ্র রাখতে সহায়তা করবে। পাশাপাশি খুশকিও দূর করবে।

৪. ১ মাসে চুল ঘন করার উপায় হলো অ্যালোভেরা

অ্যালোভেরা ত্বক, মাথার ত্বক ইত্যাদির বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করে থাকে। অ্যালোভেরা অয়েল মাথার চুল কে ঘন এবং শক্তিশালী করতে অন্যতম ভূমিকা প্রদর্শন করে। এছাড়া অ্যালোভেরা জেল মাথার চুল পড়া কমাতে স্থায়ী সমাধান দিয়ে থাকে।

ব্যবহারবিধি:

পাতা থেকে পর্যাপ্ত পরিমান এলোভেরা বের করুন, বেশি উপকার পাওয়ার স্বার্থে সঙ্গে পর্যাপ্ত পরিমাণ নারিকেল তেল অথবা অলিভ অয়েল তেল মিশ্রিত করুন। এবং চুলের গোড়ায় লাগিয়ে দিন। 30 মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। প্রতি সপ্তাহে 1 , 2 বার ব্যবহার করতে পারেন।

৫. সামনের চুল ঘন করার উপায় হলো পেঁয়াজ ব্যবহার

পেঁয়াজের রয়েছে সালফার, যা হেয়ার ফলিকল কে রিজেনারেট করে অর্থাৎ চুল ঘন করে। এছাড়াও পেঁয়াজ চুলের ব্লাড সার্কুলেশন বাড়িয়ে দেয়। যারা অতি সহজে চুল ঘন করতে চান, অথবা যাদের চুল অল্প বয়সে সাদা হয়ে যাচ্ছে তারা পেঁয়াজের রস ব্যবহার করতে পারেন। খেতে খুবই উপকারী চুলের জন্য।

৬. সরিষার তেল ও মেহেদী পাতা

চুল ঘন করার উপায় হলো সরিষার তেল ও মেহেদী পাতা চুলের জন্য খুবই উপকারী। সাধারণত আমরা সরিষার তেল চুলে একেবারে ব্যবহার করিনা। কিন্তু সরিষার তেল চুলের গোড়া মজবুত করার ক্ষেত্রে অন্যতম ভূমিকা পালন করে। চুল পড়া রোধ করে। আর মেহেদি পাতা নতুন করে চুল গজাতে সাহায্য করে। পাশাপাশি চুলের ঘনত্ব বৃদ্ধি করে বেশ কয়েক গুণ।

৭.পাতলা চুল ঘন করার উপায় হলো ডিম ব্যবহার

ডিমে রয়েছে প্রচুর প্রোটিন, সালফার, জিংক, আয়রন, সেলেনিয়াম ,ফসফরাস ও আয়োডিন। যা নতুন করে চুল গজাতে এবং চুলের ঘনত্ব বাড়াতে সহায়তা করে।

ব্যবহারবিধি:

চুলের দৈর্ঘ্য ও পরিমাণ অনুযায়ী সবকিছু একত্রিত করুন অর্থাৎ একটি ডিম থেকে শুধু সাদা অংশ নিন, পরিমাণমতো মধু এবং অলিভ অয়েল তেল নিন। অতঃপর উপকরণগুলো ভালোভাবে নিশ্চিত করুন। এবং চুলে লাগিয়ে দিন। চুলের গোড়ায় লাগানোর 20 মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে একবার ব্যবহার করুন।

পরিশেষে বলব : উপরে চুল ঘন করার উপায় সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে। অতএব আপনি যদি উপরের টিপসগুলো ফলো করেন এবং এ অনুযায়ী চুলকে যত্ন নেন।

তাহলে অবশ্যই আপনার চুল ঘন হয়ে যাবে এবং চুলের সৌন্দর্য ফিরে আসবে। যদি আমার লেখা ভালো লাগে তাহলে অবশ্যই জানাবেন। ধন্যবাদ।

আরো পড়ুন : 

Leave a Reply

Your email address will not be published.

fifteen − two =