কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম ২০২২


আপনি কি জানতে চান কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম ? কাপড়ের ব্যবসা হল এমন একটি ব্যবসা যেটা প্রতিযোগিতামূলক এবং চাহিদা পূর্ণ। পাশাপাশি এটা অনেক পরিবর্তনশীল।

কেননা সময় অতিবাহিত হওয়ার সাথে সাথে এবং বিভিন্ন উৎসবে কাপড়ের ডিজাইন নতুন নতুন আসে । তাই এই হিসেবে অনেক পরিবর্তনশীল। কাপড়ের ব্যবসা সফল হওয়ার জন্য অনেক পদ্ধতি রয়েছে।

আজ আমি কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব। পাশাপাশি বলবো কিভাবে আপনি একটি কাপড়ের ব্যবসা শুরু করতে পারেন এবং শুরু করার জন্য কোন কোন বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হয় এগুলি নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।

কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম

কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম 2022

একটি কাপড়ের ব্যবসা শুরু করার জন্য কয়েকটি বিষয়ের উপর গুরুত্ব দিতে হয় । বিষয়গুলো হল :

  • কাপড়ের ধরন নির্বাচন করা
  • কাপড়ের দোকান
  • কাপড়ের দোকানের নামের তালিকা
  • পাইকারি কাপড়ের বাজার
  • পাইকারি কাপড়ের ব্যবসা
  • কাপড়ের ডিজাইন
  • অনলাইনে কাপড়ের ব্যবসা
  • প্রচার-প্রসার

একটি কাপড়ের ব্যবসার ক্ষেত্রে এই প্রত্যেকটি বিষয়‌ গুরুত্বপূর্ণ। আজ আমি প্রত্যেকটা বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব। যদি আপনি বিষয়গুলো ফলো করেন তাহলে আপনি খুব দ্রুত কাপড়ের ব্যবসায় সফল হতে পারবেন।

কাপড়ের ধরন নির্বাচন করা

যখন আপনি কাপড়ের ব্যবসা শুরু করার ইচ্ছা করবেন। তখন সর্বপ্রথম আপনি যাচাই করবেন বা গবেষণা করবেন কোন ধরনের কাপড় মার্কেটে বেশি চাহিদা পূর্ণ। কেননা কাপড়ের বিভিন্ন ধরনের রয়েছে। যেমন :

  • থ্রি পিস
  • প্যান্ট
  • শার্ট
  • টি-শার্ট
  • বোরকা
  • লুঙ্গি
  • ছাপার কাপড়
  • টাঙ্গাইল কাপড়
  • গজ কাপড়
  • শাড়ি
  • ফোরাক
  • বাচ্চাদের কাপড়

ইত্যাদি এরকম আরো নানান ধরনের কাপড় রয়েছে। এ প্রত্যেকটিই কাপড়। কিন্তু ধনের দিক দিয়ে পার্থক্য রয়েছে। এই সব ধরনের কাপড় নিয়ে একসাথে ব্যবসা করা সম্ভব না।

তাই আপনাকে প্রথমে নির্বাচন করতে হবে কোন ধরনের কাপড় মার্কেটে বেশি চাহিদা পূর্ণ । মানুষ বেশি বেশি ক্রয় করে। তবে এখানে প্রত্যেকটি কাপড় চাহিদা পুর্ন। তবুও কিছু পার্থক্য রয়েছে। যখন আপনি গবেষণা চালাবেন তখন বুঝতে পারবেন।

কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম হলো কাপড়ের দোকান নির্বাচন করা

যখন আপনি কাপড়ের ব্যবসা শুরু করবেন এবং কি ধরনের কাপড় নিয়ে ব্যবসা শুরু করবেন তা নির্বাচন করবেন। তখন অবশ্যই আপনার দোকান প্রয়োজন পড়বে ব্যবসা করার জন্য।

কেননা ব্যবসা করার ক্ষেত্রে দোকান অনেক গুরুত্বপূর্ণ। কেননা দোকানের মাধ্যমে আপনার ব্র্যান্ডিং তৈরি হবে। ফলে আপনার দোকানের প্রসিদ্ধিলাভ করবে। আর যখন প্রসিদ্ধিলাভ করবে তখন আপনার ব্যবসা দ্বিগুণ বেড়ে যাবে। অতএব আপনাকে অবশ্যই এ ব্যাপারে খেয়াল করতে হবে।

স্থান নির্বাচন

একটি ব্যবসার ক্ষেত্রে বিশেষ করে কাপড়ের ব্যবসার ক্ষেত্রে স্থান অনেক গুরুত্বপূর্ণ। এমন একটি স্থান নির্বাচন করতে হবে যেখানে মানুষদের চলাচল বেশি। সব সময় বিভিন্ন ধরনের লোকেরা আসা-যাওয়া করে।

এমন একটি স্থান আপনাকে অবশ্যই নির্বাচন করতে হবে ব্যবসায় সফল হওয়ার জন্য। স্থান নির্বাচন করার নিয়ম : যদি আপনি শহরে থাকেন তাহলে শহরের ওই সমস্ত স্থান নির্বাচন করবেন যে সমস্ত স্থান লোকদের সমাগম বেশি। যেমন বিভিন্ন নামকরা স্থান অর্থাৎ গুলিস্তান , নিউমার্কেট ইত্যাদি।

আর যদি গ্রামে হয় তাহলে বিভিন্ন বাজার ইত্যাদি স্থান নির্বাচন করবেন। কেননা এসব স্থানে সবসময় লোকদের সমাগম বেশি থাকে।

কাপড়ের দোকানের নামের তালিকা

একটি ব্যবসার ব্র্যান্ডিংয়ের ক্ষেত্রে নাম অনেক গুরুত্বপূর্ণ। তাই এমন একটা নাম নির্বাচন করবেন যে নামটি ইউনিক হবে । খুব সহজেই গ্রাহকরা মনে রাখতে পারবে। আমি কয়েকটি নাম বলছি :

  • চাঁদনী ফ্যাসন হাউজ
  • রুপসী বস্ত্র বিতান
  • ইমরান ফেব্রিক হাউজ
  • সাইফা বস্ত্র মেলা
  • সোনিয়া বস্ত্রশালা

ইত্যাদি এরকম আরো অনেক নাম রয়েছে।

পাইকারি কাপড়ের বাজার থেকে ক্রয় করা

আপনি যদি ব্যবসা সফল হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে কাপড় গুলো পাইকারি বাজার থেকে করতে হবে। কাপড়ের বিভিন্ন পাইকারি বাজার রয়েছে।

যেমন : ইসলামপুর রয়েছে, পাবনা রয়েছে ইত্যাদি। সুতরাং আপনি যদি ব্যবসায় বেশি লাভবান হতে চান এবং সফল হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে পাইকারি মার্কেট থেকে জামা-কাপড় কিনতে হবে।

আরো পড়ুন : শাড়ির পাইকারি মার্কেট কোন জায়গায় আছে ?

কাপড়ের ডিজাইন এর প্রতি লক্ষ্য রাখা

বর্তমান সময়ে প্রতিটি কাপড়ের ক্ষেত্রে ডিজাইন দেখা হয়। অতএব আপনাকে অবশ্যই ডিজাইন এর প্রতি লক্ষ্য রাখতে হবে । ডিজাইন ছাড়া কেমন যেন ওই কাপড়ে কোন মূল্যই নেই।

সময়ের তালে তালে আপনাকেও ডিজাইন পাল্টাতে হবে নতুন নতুন ডিজাইন আনতে হবে। তাহলে খুব সহজেই গ্রাহকরা আপনার পণ্যের প্রতি আগ্রহ বোধ হবে। এবং বেশি বেশি ক্রয় করবে।

পাইকারি বিক্রি করবেন নাকি খুচরা বিক্রি করবেন তা নির্ণয় করা

অর্থাৎ আপনি পাইকারি ব্যবসা করবেন না খুচরা ব্যবসা করবেন। এ সমস্ত বিষয়ে পূর্ব থেকেই নির্বাচন করা। আপনি পাইকারি ও করতে পারবেন আপনার খুচরা ও করতে পারবেন এটা আপনার ব্যক্তিগত ব্যাপার।

যদি আপনি পাইকারি ব্যবসা করেন তাহলে পুঁজি বেশি লাগবে আর যদি খুচরা বিক্রি করেন তাহলে পুঁজি কম লাগবে। এই হিসেবে আপনি পাঁচ থেকে ছয় লক্ষ টাকা দিয়ে খুব সহজেই খুচরা হিসেবে কাপড়ের ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

অনলাইনে কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম

সরাসরি বিক্রি করার পাশাপাশি অনলাইনেও কাপড় বিক্রি করতে পারেন। বর্তমান মানুষ অনলাইনের বেশি বেশি ঝুঁকছে। অনলাইন থেকে কেনাকাটা পছন্দ করে। এই সুযোগটাকে কাজে লাগাতে পারেন। বিভিন্ন আনকমন আনকমন ডিজাইন গুলো অনলাইনের মাধ্যমে বিক্রি করতে পারেন।

অনলাইনে বিক্রি করার ক্ষেত্রে প্রচার প্রসার

অনলাইনে বিক্রি করার ক্ষেত্রে আপনি যদি খুব দ্রুত সফল হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনাকে মার্কেটিং করতে হবে। তাহলে খুব দ্রুত সফলতা লাভ করতে পারবেন।

প্রচার প্রসারের জন্য আপনি সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করতে পারেন। সোশ্যাল মিডিয়ায় মানুষ একটিভ থাকে বেশি। যেমন ফেসবুক এখানে মানুষ প্রচুর পরিমাণে একটিভ থাকে।

আপনি যদি ফেসবুকের মাধ্যমে প্রচার করেন তাহলে খুব দ্রুত সফলতা লাভ করতে পারবেন। বর্তমানে অনেকেই কোন ধরনের দোকান না দিয়ে শুধু অনলাইনের মাধ্যমে কাপড় বিক্রি করছে।

এবং তারা সফলতাও লাভ করছে। বিশেষ করে তারা ফেসবুক লাইভ করার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের কাপড় বিক্রি করছে। এসমস্ত মাধ্যম আপনিও গ্রহণ করতে পারেন আপনার কাপড় বিক্রি করার জন্য।

পরিশেষে বলব : উপরে কাপড়ের ব্যবসা করার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। অর্থাৎ কিভাবে আপনি একটি কাপড়ের ব্যবসা শুরু করতে পারেন , ব্যবসা শুরু করার জন্য কোন কোন বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হয় ইত্যাদি এ ব্যাপারে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। যদি আপনাদের লেখাটা ভালো লেগে থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

2 × 4 =