ইশরাকের নামাজ পড়ার নিয়ম

ইশরাকের নামাজ পড়ার নিয়ম। সালাতুল ইশরাক হলো নফল নামায। এই নামাজের অনেক গুরুত্ব ও ফজিলত রয়েছে। রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম নিজে এই নামাজ অর্থাৎ সালাতুল ইশরাক এর নামাজ আদায় করেছেন এবং অন্যদেরকেও আদায় করতে বলেছেন।


রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম ফজরের নামাযের পর থেকে সূর্য উদয় হওয়া পর্যন্ত মসজিদে অবস্থান করতেন। এ সময় দোয়া তাসবিহ পাঠ ও দ্বীনি আলোচনা করতেন। সূর্য উদয় পর দুই রাকাত নামাজ আদায় করতেন ।

এই আমলে প্রতি অন্যদেরও উৎসাহিত করেছেন। আজ আমি ইশরাকের নামাজ পড়ার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে আলোচনা করব । যাতে করে আপনারা সঠিক ও সুন্দরভাবে এই নামায আদায় করতে পারেন ।

ইশরাকের নামাজ পড়ার নিয়ম
ইশরাকের নামাজ পড়ার নিয়ম

ইশরাকের নামাজ পড়ার নিয়ম

ইশরাক নামাজ এটি একটি নফল নামাজ। সূর্য উদিত হওয়ার কিছুক্ষণ পর থেকে একটি নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত এই নামাজ আদায় করা যায়, নির্দিষ্ট সময় অতিক্রম হওয়ার পর এই নামাজ আদায় করা যায় না।

ইশরাক নামাজের কোন কাযা নেই, ইশরাকের নামাজ আদায় না করলে কোন গুনাহ হবে না। তবে ইশরাকের নামাজ আদায় করলে অনেক বড় সাওয়াব পাওয়া যায়।
এই নামাজ আদায় করার জন্য ভিন্ন কোনো নিয়ম নেই। স্বাভাবিক যেরকম সুন্নত না নফল নামাজ পড়ে থাকেন, অনুরূপ এই নামাজ আদায় করবেন।

ইশরাক নামাজের নিয়ত

এশরাক নামাজের নিয়ত হলো, এভাবে বলবেন আমি আল্লাহ সুবহানাহু ওয়া তায়ালার সন্তুষ্টির জন্য সালাতুল ইশরাকের দুই রাকাত নামাজ আদায় করছি আল্লাহু আকবার।

ইশরাক নামাজের রাকআত সংখ্যা

ইশরাক নামাজের কোন নির্দিষ্ট রাকাত সংখ্যা নেই। আপনি চাইলে 2 রাকাত‌ও পড়তে পারবেন। তবে এক হাদীসে এসেছে রাসূলুল্লাহ সাল্লাহু সালাম দুই দুই রাকাত করে চার রাকাত নামাজ আদায় করতেন। এটি রাসূলুল্লাহ সাল্লাহু আলাই সালাম এর আমল দ্বারা প্রমাণিত।

ইশরাক নামাজের সময়

ইশরাক নামাজের সময় হল :  সূর্য এক বর্শা পরিমাণ অর্থাৎ 1 মিটার কিংবা দেড় মিটার উদিত হওয়ার পর থেকে দ্বিপ্রহরের পূর্ব পর্যন্ত। উত্তম হলো সূর্য উদিত হওয়ার এক থেকে দেড় ঘণ্টার মধ্যে নামাজ আদায় করে নেওয়া।

সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে নামাজ আদায় না করা বরং সামান্য সময় বিলম্বিত করা। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাই সালাম সূর্য ওঠার সঙ্গে সঙ্গে ইশরাকের নামাজ আদায় করেন নি বরং এক বর্শা সমপরিমাণ সূর্য উদিত হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করেছেন। এক বর্শা সমপরিমাণ উচ্চতা হল 1 মিটার আবার কোন কোন উলামায়ে কেরাম বলেন দেড় মিটার। একবার বর্শা পরিমাণ সূর্য দিতে হবে সময় লাগে প্রায় 15 থেকে 20 মিনিট। 
অতএব সূর্য উদিত হওয়ার 15 থেকে 20 মিনিট পর সালাতুল ইশরাক বা ইশরাকের নামাজ আদায় করুন।

ইশরাক নামাজের ফজিলত

১. ইশরাক নামাজের অনেক ফজিলত রয়েছে রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেন: যে ব্যক্তি ফজরের নামাজের জামাতের সঙ্গে পরল অতঃপর সূর্য ওঠা পর্যন্ত সেখানে বসে আল্লাহর যিকির করল অতঃপর দাঁড়িয়ে দুই রাকাত নামাজ পড়ল সে একটি হজ্ব ও ওমরা করার সাওয়াব নিয়ে ফিরে গেল। সুবাহানাল্লাহ
( তাবারানী, আত তারগীব)

২. হযরত আনাস ইবনে মালেক রাদিয়াল্লাহু তা’আলা আনহু বর্ণনা করেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এরশাদ করেছেন:
যে ব্যক্তি ফজরের নামাজ জামাতে আদায় করার পর সূর্য ওঠার আগ পর্যন্ত সেখানে বসে আল্লাহর যিকির করে, অতঃপর দুই রাকাত নামাজ আদায় করে, তার জন্য একটি পূর্ণাঙ্গ হজ্ব ও ওমরার সওয়াব রয়েছে। সুবাহানাল্লাহ
( তিরমিজি, মিশকাত)

আল্লাহ সুবহানাতায়ালা আমাদের সকলকে ইশরাকের নামাজ পড়ার নিয়ম জেনে দৈনন্দিন ইশরাক নামাজ আদায় করার তৌফিক দান করুন। আমিন

আরো পড়ুন : ইসলাম ধর্মের উৎপত্তি কোন সময় হয় ?

Leave a Reply

Your email address will not be published.

nineteen − twelve =