ফেসবুক মার্কেটিং করে ঘরে বসে অনলাইনে আয়

আপনি কি জানতে চান ফেসবুক মার্কেটিং কি ? ৩ বিলিয়ন মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করে সারা বিশ্বে প্রায় । আর 5 কোটি মানুষ বাংলাদেশে প্রায় ফেসবুক ব্যবহার করে ।

কিন্তু তারা ফেসবুক থেকে অনলাইনে ইনকাম করে না বরং অধিকাংশ মানুষই ফেসবুক ব্যবহার করে সামাজিক যোগাযোগের জন্য।

ফেসবুক থেকে বিভিন্ন উপায়ে আয় করা । বর্তমান সময়ে ফেসবুক মার্কেটিং করে খুব সহজেই ঘরে বসে ইনকাম করা যায় ।

এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব ।

ফেসবুক মার্কেটিং

ফেসবুক মার্কেটিং কাকে বলে বা কি ?

ব্যবহারকারীর নিকট কোন প্রতিষ্ঠানের সেবা বা পন্য প্রচার করাকে ফেসবুক মার্কেটিং বলে । দুইভাবে মার্কেটিং করা যায় ।

  • ফ্রিতে মার্কেটিং করা যায় ।
  • টাকা খরচ করে মার্কেটিং করতে হয় ।

মার্কেটিং করবেন কেন ?

ফেসবুকে প্রায় আড়াই বিলিয়ন সক্রিয় ব্যবহারকারী রয়েছে। প্রতিনিয়ত ব্যবহারকারীর সংখ্যা বাড়ছেই ।

আমাদের দেশে প্রায় 4 কোটি মানুষ ফেসবুক ব্যবহার করছে। আপনি ইচ্ছা করলে ঘরে বসে 4 কোটি মানুষের কাছে আপনার পণ্য প্রচার করতে পারেন ।

এত সহজে আপনি এত গ্রাহক পেয়ে যাচ্ছেন একসাথে আপনি কেন ফেসবুক মার্কেটিং করে অনলাইনে ইনকাম করবেন না ?

তাই এখনই প্রস্তুতি নিয়ে নিন মার্কেটিং করার জন্য। অতএব এই ফেসবুক হবে আপনার মার্কেটিং করার সবচেয়ে সহজ এবং লাভজনক উপায় ।

ফেসবুক মার্কেটিং করে আয় করার লাভ

  1. ফেসবুক ব্যবহারকারী লক্ষ লক্ষ তাই ফেসবুকের মধ্যে প্রচুর গ্রাহক রয়েছে যাদের বিভিন্ন চাহিদা রয়েছে ।
  2. খুব সহজে আপনার ব্যবসায়ী পণ্যের গ্রাহককে খুঁজে পাওয়া যাবে ।
  3. সরাসরি মার্কেটিং এর তুলনায় ফেসবুকে এ খুব কম খরচে বিজ্ঞাপন দেয়া যায় ।
  4. খুব সহজেই কোন এলাকা , স্থান , কোন এরিয়া হিসেবে টার্গেট করে ফেসবুক মার্কেটিং করা যায়।
  5. পুরুষ অথবা মহিলা কে আলাদা আলাদা করে টার্গেট করে মার্কেটিং করা যায় ।
  6. টার্গেট করে মার্কেটিং করা যায় বিভিন্ন বয়সের লোককে

ফেসবুক মার্কেটিং কিভাবে করব ?

ফ্রিতে মার্কেটিং

এর জন্য আপনাকে আপনার কোম্পানির নামে একটি ফেসবুক পেজ খুলতে হবে এবং সেখানে অনেক ফলোয়ার বাড়াতে হবে সাথে সাথে বিভিন্ন গ্রুপে, পেজে পোস্ট করতে হবে ।

সাথে একটা জিনিস খেয়াল রাখতে হবে যে সমস্ত গ্রুপের মধ্যে আপনি পোস্ট করবেন । সেটা যেন আপনার বিজনেস রিলেটেড হয়, তাহলে আপনি দ্রুত সফলতা অর্জন করতে পারবেন ।

আপনি যদি এখানে একটু সময় দেন এবং ধৈর্য ধারণ করেন তাহলে একটু দেরি হলেও সফলতা অর্জন করবেন.

টাকার মাধ্যমে ফেসবুক মার্কেটিং

এক্ষেত্রে আপনার বিজনেসকে অধিক প্রচার প্রসার করার জন্যে ফেসবুক কোম্পানিকে টাকা দিতে হবে যাতে দ্রুত সফল হওয়া যায় ।

আপনি টাকা যত বেশি দিবেন ফেসবুক কোম্পানি তত বেশি মানুষের কাছে পৌঁছে দেবে । এটার জন্য আপনার একটি ফেসবুক বিজনেস পেজ থাকতে হবে।

পাশাপাশি আপনি আপনার বিজনেস রিলেটেড টার্গেটেট গ্রাহক বাছাই করে বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। এক্ষেত্রে আপনার খরচ অনেক কমে যাবে।

মার্কেটিং এ সফল হওয়ার জন্য কয়েকটি বিষয়ে লক্ষ্য রাখতে হবে

  • মার্কেট নিয়ে গবেষণা করতে হবে অর্থাৎ বর্তমান সময়ে গ্রাহকের কোন পণ্যের প্রতি বেশি চাহিদা সেই পণ্য নিয়ে আপনাকে মার্কেটিং করতে হবে তাহলে আপনি দ্রুত সফল হতে পারবেন।
  • আপনার প্রতিযোগী কারা তাদের নিয়ে গবেষণা করতে হবে ।
  • আকর্ষণীয়ভাবে আপনার প্রোডাক্ট এর ছবি দিতে হবে যাতে করে গ্রাহক আপনার প্রডাক্টটি প্রথম দেখাতেই পছন্দ করেন ।

ফেসবুক মার্কেটিং এর জন্য কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

১/ ফেসবুকে মার্কেটিং করার জন্য অবশ্যই আপনি ফেসবুক বিজনেস পেজ ব্যবহার করবেন।

আমাদের মাঝে অনেকেই মনে করে প্রোডাক্ট এর ছবি নিজের ফেসবুক ওয়ালে শেয়ার করলেই অনেক বিক্রি হবে।

অথচ আপনার ধারণা ভুল।  কেননা ফেসবুকে যারাই আপনার প্রোডাক্টি দেখছে তারা আপনার কাছের মানুষ।

আর কাছের মানুষ নানান প্রশ্ন করবে, সহজে কিনতে যাবেনা, কিনলেও লাভ দিবে না।

আর যদি কোন সমস্যা হয় তাহলে অনেক লজ্জিত হবেন। অতএব আপনি আপনার নিজের ফেসবুক ওয়ালে কোনো কিছু শেয়ার করবেন না।

২/ আপনার বিজনেস পেজ টাকে প্রফেশনাল এবং পরিচিত বানাতে হবে। কেননা সোশ্যাল মিডিয়াতে অপরিচিত কাউকে মানুষ সহজে বিশ্বাস করতে চায় না।

পাশাপাশি তার কোনো বক্তব্য শুনতে চায় না। এই কারণে আপনার ফেসবুক বিজনেস পেজকে প্রফেশনাল বানাতে হবে এবং পরিচিতি লাভ করতে হবে।

পাশাপাশি একটিভ থাকতে হবে। সেইসাথে কমেন্টের রিপ্লাই দেওয়া। বিভিন্ন প্লাটফর্মে শেয়ার করা।

ইত্যাদি নানান কাজ করলে একদিন আপনি অর্থাৎ আপনার ফেসবুক বিজনেস পেজ টা বিশ্বাসযোগ্য হয়ে উঠতে পারবেন।

ফেসবুক মার্কেটিং এর মধ্যে কয়েকটি ব্যবসা

১/  টি-শার্টের ব্যবসা করা। আপনি ইচ্ছা করলে ফেসবুকের মধ্যে টি-শার্টের ব্যবসা করতে পারেন। অনেক বড় বড় কোম্পানি রয়েছে যেমন টিস্প্রিং ইত্যাদি।

আপনি তাদের প্রোডাক্ট অর্থাৎ টি শার্ট বিক্রি করে দিয়ে মাসে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

২/ আপনি ইচ্ছা করলে ফেসবুকের মধ্যে ই-কমার্স ব্যবসা করতে পারেন। অর্থাৎ মেয়েদের                      শাড়ি , ড্রেস ,ছেলেদের পাঞ্জাবি। ইত্যাদি বিক্রি করতে পারেন। বর্তমানে বাংলাদেশের অনেকেই এ ব্যবসা শুরু করেছেন।

৩/ ফেসবুকে লোকাল ব্যবসা করতে পারেন।

যেমন : রেস্টুরেন্টের ব্যবসা , বিভিন্ন ফ্যাশন হাউজের ব্যবসা ইত্যাদি আপনার ব্যবসার লাভ কে বৃদ্ধি করার জন্য ফেসবুকে মার্কেটিং করে করতে পারেন।

৪/ ফেসবুকের মাধ্যমে আপনি ফাইবারের কাজ দিগুন করতে পারেন। অর্থাৎ আপনি যদি ফেসবুকে বিভিন্ন প্রচারণা চালাতে থাকেন সঠিকভাবে ।

তাহলে অবশ্যই আপনি বিভিন্ন বায়ারকে পাবেন। সুতরাং এখান থেকে আপনি আপনার কাজকে আরও দ্বিগুন করতে পারবেন ফলে এর দ্বারা আপনার ইনকাম বৃদ্ধি পাবে।

৫/ ফেসবুকের মাধ্যমে লোকাল চাকরি । অর্থাৎ আপনি ফেসবুকের মাধ্যমে মার্কেটিং করে বিভিন্ন লোকদেরকে চাকরির সুযোগ করে দিতে পারেন।

৬/  হোস্টিং মার্কেটিং করে ভালো ইনকাম করা যায়। অর্থাৎ আপনি যদি ফেসবুকে হোস্টিং এর ব্যাপারে বিভিন্ন মার্কেটিং করেন।

তাহলে এখান থেকে অনেকটাই ইনকাম করতে পারবেন। বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক লোকই এই হোস্টিং এর ব্যবসা শুরু করেছে।

অতএব আপনিও সময় নষ্ট না করে এ ব্যবসা শুরু করতে পারেন।

৭/ ফেসবুকে মার্কেটিং করে আপনি আপনার ওয়েবসাইটে বা ইউটিউব চ্যানেলে প্রচুর পরিমাণে ট্রাফিক নিয়ে যেতে পারবেন। আর আপনার যত ট্রাফিক বৃদ্ধি পাবে আপনার ইনকাম তত বাড়তে থাকবে।

৮/ বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসের কাজ পাওয়া যায়। আপনি যদি সেই মার্কেটপ্লেসের কাজ গুলো ঠিকমতো করেন। তাহলে আপনি এখান থেকে প্রচুর পরিমানে ইনকাম করতে পারবেন।

৯/ ফেসবুকের মাধ্যমে আপনি আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে ইনকাম করতে পারেন।

অর্থাৎ আপনি যদি কোন বিষয়ে পারদর্শী হন সে বিষয়ে মার্কেটিং করবেন। তারপর এখান থেকে অবশ্যই আপনি আপনার দক্ষতা অনুযায়ী কাজ পাবেন।

তারপর আপনি প্রতিমাসে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

মোটকথা : উপরে যে উপায়ে তথা ব্যবসাগুলো বললাম এগুলা ব্যতীত আরো অনেক পদ্ধতি রয়েছে যা আপনি ফেসবুকে মার্কেটিং করে ভালো টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

তবে শর্ত হলো পরিশ্রম করতে হবে । তাহলে আপনি সফল হতে পারবেন।

শেষ কথা হল : ফেসবুক এ অযথা সময় নষ্ট না করে ফেসবুককে আপনার বিজনেসের  প্রচার মাধ্যম বানাতে পারেন ।

বর্তমান সময়ে এটাই হলো সবচেয়ে লাভজনক ও অনলাইনে ইনকাম করার পদ্ধতি ।

এখানে আপনি প্রচুর  গ্রাহক পাবেন আপনার বিজনেসের জন্য ।খুব দ্রুত সফল হতে পারবেন। আশা করি,  আপনাদেরকে অল্প হলেও মার্কেটিং সম্পর্কে ধারণা দিতে পেরেছি।

আরো পড়ুন : সিপিএ মার্কেটিং কৌশল খুব সহজেই

Leave a Reply

Your email address will not be published.

9 + 4 =