ডার্ক চকলেট এর উপকারিতা ও ডার্ক চকলেট খাওয়ার নিয়ম

আপনি ডার্ক চকলেট এর উপকারিতা সম্পর্কে জানতে চান  ? তাহলে এই আর্টিকেলটি শুধু আপনার জন্য।

বর্তমান বাংলাদেশ চকলেট প্রিয় একটি দেশ। আমাদের দেশে ছোট-বড় সবাই প্রায় চকলেট পছন্দ করে।

আর চকলেট প্রেমীদের কাছে ডার্ক চকলেট সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়। ডার্ক চকলেট হল এক ধরনের স্পেশাল চকলেট ।

যাতে কোকো সলিড এবং কোকো বাটার থাকে, এবং যা দুধ বা মাখন ছাড়াই মিল্ক চকলেটে পাওয়া যায়।

আর অতিরিক্ত মিষ্টি ছাড়া ডার্ক চকোলেটগুলো তিক্ত চকোলেট অথবা মিষ্টিবিহীন চকলেট নামে আমাদের কাছে পরিচিত।

আমরা এখন আমাদের এই আর্টিকেলে আপনাকে ডার্ক চকলেট এর উপকারিতা ও ডার্ক চকলেট খাওয়ার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে জানাবো।

পাশাপাশি ডার্ক চকলেট সম্পর্কে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা করব । সুতরাং আপনাকে আর্টিকেলটি শেষ পর্যন্ত পড়তে হবে। 

ডার্ক চকলেট এর উপকারিতা

ডার্ক চকলেট এর উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম

ডার্ক চকলেট খুবই মজাদার চকলেট । এই চকলেটে অনেক উপকার রয়েছে । উপকার সম্পর্কে জানার পূর্বে এই চকলেট সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধারণা নেওয়া প্রয়োজন ।

যাতে খুব সহজেই উপকারিতা সম্পর্কে আইডিয়া নিতে পারেন । তাই প্রথমে এই চকলেট সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধারণা দিব । এরপর উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করব ।

আমাদের আর্টিকেলে ডার্ক চকলেট সম্পর্কে যে সব বিষয় জানতে পারবেন।

  1. ডার্ক চকোলেটের নাম
  2. বাংলাদেশে ডার্ক চকলেটের জনপ্রিয় কিছু ব্রান্ডের নাম
  3. বিভিন্ন ব্রান্ড অনুযায়ী ডার্ক চকলেটের স্বাদ
  4. ডার্ক চকলেট চেনার কয়েকটি মৌলিক উপায়
  5. ডার্ক চকলেট চেনার আরো কয়েকটি নির্দিষ্ট টিপস
  6. বাংলাদেশে ডার্ক চকলেটের দাম 
  7. ডার্ক চকলেট খাওয়ার নিয়ম 
  8. ডার্ক চকলেট খাওয়ার উপকারিতা 

এতক্ষণ সংক্ষিপ্ত আলোচনা করলাম । এখন ডার্ক চকলেট সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব ।

১, ডার্ক চকলেটের নাম

এই চকলেট হল এমন এক ধরনের চকলেট যাতে দুধ বা অন্যান্য দুগ্ধজাত পদার্থের পরিমাণ খুব কম থাকে।

বা বলতে পারেন একেবারেই থাকে না। ডার্ক চকলেটে কোকোর  গুঁড়ার পরিমাণ বেশি থাকে, যা এটিকে তার স্বাদ এবং পুষ্টিগুণ বাড়িয়ে দেয়।

ডার্ক চকলেটের নামগুলি সাধারণত নির্ধারিত হয়। কোকো বীজের গুঁড়ার শতাংশ দ্বারা।  যেমন,  ৭০% ডার্ক চকলেট বলতে বোঝায়, যে চকলেটে কোকো বীজের গুঁড়ার পরিমাণ ৭০%  এবং ৩০% অন্যান্য উপাদান থাকে।

ডার্ক চকলেটের কিছু জনপ্রিয় নাম হল:

  • ৭৯% কোকো
  • ৮৫% কোকো
  • ৯০% কোকো
  • ১০০% কোকো

২, বাংলাদেশে ডার্ক চকলেটের কিছু জনপ্রিয় ব্র্যান্ড নাম হল:

  1. মার্স
  2. নেসলে
  3. চার্লি
  4. সুন্দরবন
  5. অলিভ

এই ব্র্যান্ডগুলি বিভিন্ন ধরনের ডার্ক চকলেট উৎপাদন করে থাকে।  

৩, বিভিন্ন ব্রান্ড অনুযায়ী ডার্ক চকলেটের স্বাদ।

  • লিন্ডট এক্সেলেন্স ৭০% কোকো ডার্ক চকলেট: এই চকলেটটিতে এক ধরনের ক্রিমি স্বাদ রয়েছে। আর ক্রিমি স্বাদ অনেকের কাছে খুব বেশি প্রিয় হয়ে থাকে।
  • গিয়ার্ডেল হোয়াইট ৭০% কোকো ডার্ক চকলেট: এই চকলেটটিতে আপনি এক ধরনের মিষ্টি ফলের স্বাদ পাবেন। যা আপনার মন কে ভরে তুলবে।
  • হ্যালিবারটন ৭০% কোকো ডার্ক চকলেট: এই চকলেটটিতে আপনি  কড়া চকোলেট স্বাদ পাবেন। 
  • ট্যাজা ৭০% কোকো ডার্ক চকলেট: এই চকলেটটিতে আপনি এক ধরনের মশলাদার ফলের স্বাদ অনুভব করবেন।
  • মাস্ট অর্গানিক ৭০% কোকো ডার্ক চকলেট: এই চকলেটটি আপনার স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারী। এতে আপনি এক ধরনের প্রাকৃতিক স্বাদ অনুভব করবেন।

৪, ডার্ক চকলেট চেনার  কয়েকটি মৌলিক উপায় :

  • কোকো সামগ্রী: এই চকলেটে যত বেশি পরিমাণে কোকো সামগ্রী থাকবে, আপনার কাছে চকলেট তত স্বাস্থ্যকর হবে। ৭০% কোকো বা তার বেশি থাকলে সেই চকলেটটি আপনি বেছে নিতে পারেন 
  • স্বাদ: এই চকলেট সাধারণত মিষ্টি কম হয়। যদি আপনি  চকলেটের মিষ্টতা বেশি পছন্দ করেন, তাহলে আপনি ৬০% কোকো বা তার কম থাকা চকলেট বেছে নিতে পারেন।
  • রঙ: এই চকলেট সাধারণত গাঢ় বাদামী বা কালো কালারের হয়ে থাকে। যদি চকলেট হালকা বাদামী রঙের হয়, তাহলে আপনি বুঝে নিবেন যে এটিতে  কোকোর পরিমাণ কম রয়েছে।
  • টেক্সচার:  সাধারণত  এই চকলেট একটু শক্ত এবং ক্রিমি হয়। যদি চকলেট নরম বা সিক্ত হয়, তাহলে আপনি বুঝে নিবেন যে এটিতে অতিরিক্ত চিনি বা চর্বি থাকতে পারে।

এই চকলেট কেনার সময়, ব্র্যান্ডের নাম এবং গুণমানের বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রাখুন। কিছু ব্র্যান্ড এমন আছে যারা তাদের  চকলেটে উচ্চ মানের উপাদান ব্যবহার করে।  আবার অন্যান্য কিছু ব্র্যান্ড আছে যারা  কম মানের উপাদান ব্যবহার করে।

আরো পড়ুন : চকলেট ব্যবসার আইডিয়া : ব্যবসা করার সম্পূর্ণ গাইডলাইন ।

৫, ডার্ক চকলেট চেনার আরও কয়েকটি নির্দিষ্ট টিপস হল:

  1. কোকো সামগ্রী লেবেলটি যাচাই করতে হবে। ৭০% কোকো বা তার বেশি থাকা চকলেট খাওয়ার চেষ্টা করুন।
  2. প্রথমে চকলেটটির ঘ্রাণ নিবেন। যদি আপনি একটি কড়া কোকো ঘ্রাণ পান, তাহলে বুঝে নিবেন যে চকলেটটি ভালো মানের।
  3. তারপর চকলেটটি টেস্ট করুন। সাধারণত এই চকলেটটে মিষ্টি কম হওয়া উচিত।

এই চকলেট একটি অত্যন্ত সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর খাবার। যা স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী হতে পারে। তবে, এটি পরিমিতভাবে খাওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

৬, বাংলাদেশে ডার্ক চকলেটের দাম

সাধারণত আমাদের দেশে ডার্ক চকলেটের দাম বিভিন্ন সময় বিভিন্ন ব্র্যান্ড, উপাদান এবং আকারের উপর ভিত্তি করে পরিবর্তন হয়। সাধারণত, ১০০ গ্রাম এই চকলেটের মূল্য ৫০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে হয়ে থাকে।

ডার্ক চকলেট এর দাম বাংলাদেশে

নামগ্রাম দাম
আমুল১০০ গ্রাম এই চকলেটের দাম৫০ থেকে ১০০ টাকা হয়ে থাকে।
হেরশেস১০০ গ্রাম এই চকলেটের দাম৫০ থেকে ১০০ টাকা হয়ে থাকে।
কিটক্যাট১০০ গ্রাম এই চকলেটের দাম ৫০ থেকে ১০০টাকা হয়ে থাকে।
লিন্ডট১০০ গ্রাম এই চকলেটের দাম ১০০ থেকে ২০০ টাকা হয়ে থাকে।
গেটাউড১০০ গ্রাম এই চকলেটের দাম১০০ থেকে ২০০  টাকা হয়ে থাকে।

৭, ডার্ক চকলেট খাওয়ার নিয়ম

কোকোর  পরিমাণ বেশি থাকা চকলেট সবচেয়ে ভালো। সাধারণত ৭০% কোকো বা তার বেশি থাকা চকলেট স্বাস্থ্যকর হয়ে থাকে।

চিনি মিশ্রিত বা অন্যান্য কৃত্রিম উপাদানযুক্ত চকলেট না খাওয়ার অনুরোধ রইল।

অতিরিক্ত পরিমাণে ডার্ক চকলেট খাবেন না। প্রতিদিন ২৮% গ্রাম বা তার কম ডার্ক চকলেট খাওয়া নিরাপদ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

ডার্ক চকলেট খাওয়ার অন্য কিছু উপায় হল:

  • শুধু এক টুকরো ডার্ক চকলেট খাওয়া।
  • এই চকলেট দিয়ে চা বা কফি বানিয়ে পান করা।
  • এই চকলেট দিয়ে তৈরি খাবার বা পানীয় খাওয়া।

এই চকলেট একটি স্বাস্থ্যকর খাবার হলেও অতিরিক্ত পরিমাণে খাওয়া উচিত নয়। এটিতে ক্যালোরি এবং ফ্যাট থাকে, তাই এটি ওজন বৃদ্ধির কারণ হতে পারে।

৮, ডার্ক চকলেট এর উপকারিতা কি কি ?

এই চকলেট খাওয়ার বেশ অনেক উপকারিতা রয়েছে। এই চকলেট একটি সুস্বাদু এবং পুষ্টিকর খাবার।

যা স্বাস্থ্যের জন্য অনেক উপকারী হতে পারে। এই চকলেটে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা আপনার দেহকে ক্ষতিকারক ফ্রি র‌্যাডিকেল থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করবে । ডার্ক চকলেট হৃদরোগ, ক্যান্সার এবং অন্যান্য রোগের ঝুঁকি কমাতেও সাহায্য করে থাকে।

এই চকলেটের নির্দিষ্ট কিছু উপকারিতা আমরা নিচে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করছি।

  • (ক) হার্ট স্বাস্থ্যের উন্নতি করে
  • (খ) ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়
  • (গ)ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে
  • (ঘ) মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে
  • (ঙ) মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করে

(ক) হার্ট স্বাস্থ্যের উন্নতি করে: ডার্ক চকলেটে ফ্ল্যাভোনয়েড নামক অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে । যা  আপনার রক্তনালীগুলিকে শিথিল করতে এবং রক্ত চলাচল উন্নত করতে সাহায্য করবে। এবং উচ্চ রক্তচাপ এবং হৃদরোগ হওয়ার ঝুঁকি কমাতে পারে।

(খ) ক্যান্সারের ঝুঁকি কমায়: এই চকলেটে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট আছে । যা আপনার ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি এবং বিস্তার রোধ করতে সাহায্য করে থাকে।  বিশেষজ্ঞরা  গবেষণায় করে দেখেছেন,  যে ডার্ক চকলেট খাওয়ার কারণে ক্যান্সার, বিশেষ করে কোলন ক্যান্সার, ফুসফুস ক্যান্সার এবং স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে থাকে।

(গ) ত্বকের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে: ডার্ক চকলেটে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে ।যা আপনার ত্বকের কোষগুলোকে ক্ষতি থেকে রক্ষা করতে সাহায্য করে। এবং ত্বকের বয়সজনিত লক্ষণ এবং অন্যান্য ত্বকের সমস্যা থেকে বাঁচতে  সাহায্য করতে পারে।

(ঘ) মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে: এই চকলেটে ফ্ল্যাভোনয়েড থাকে। যা আপনার মস্তিষ্কের কোষগুলিকে বৃদ্ধি করতে এবং মস্তিষ্কের ক্রিয়াকলাপ উন্নত করতে সাহায্য করে। বিশেষজ্ঞরা গবেষণায় করে দেখেছেন ,যে ডার্ক চকলেট খাওয়াটা  বয়সের সাথে সাথে মস্তিষ্কের ক্ষতি রোধ করতে সাহায্য করে। এবং সাথে সাথে স্মৃতিশক্তি ও মনোযোগ বাড়াতে সাহায্য করে।

(ঙ) মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নতি করে: এই চকলেটে ফ্ল্যাভোনয়েড থাকে। যা আপনার মস্তিষ্কের ডোপামিন এবং সেরোটনিন স্তর বাড়াতে সাহায্য করে। এবং এই চকলেট খাওয়ার কারণে হরমোনগুলি সুখ এবং সন্তুষ্টির অনুভূতি তৈরি করতে সাহায্য করে। বিশেষজ্ঞরা গবেষণায় দেখেছেন , যে ডার্ক চকলেট খাওয়াটা মন খারাপ এবং বিষণ্নতা কমাতে সাহায্য করতে পারে।

উপসংহার

উপরে ডার্ক চকলেট এর উপকারিতা ও খাওয়াম নিয়ম সম্পর্কে আলোচনা করলাম । চকলেট খুবই উপকারি ।

আশাকরি আপনি এ চকলেট পরিপূর্ণ ধারণা পেয়েছেন । লেখা ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই কমেন্ট করে জানাবেন। ধন্যবাদ।

I always like to learn new things and spread them. Therefore, my main goal is to highlight various new topics related to online business, online income, blogging and information technology.

Leave a Comment